ফেনী
বুধবার, ২৭শে মে, ২০২০ ইং, দুপুর ১২:৫০
, ৩রা শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম:
করোনা: চীনে প্রথমবারের মতো ২৪ ঘণ্টায় নতুন আক্রান্ত নেই ফেনীতে ভিন্ন ধর্মালম্বীদের মাঝে নিজাম হাজারী এমপির ঈদ উপহার মহিপালে নজর কাড়ছে ‘আল্লাহ- মুহাম্মদের’ নামে দৃষ্টিনন্দন ভাস্কর্য ফেনী পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডে অসহায়দের মাঝে বিএনপির ঈদ উপহার মহিপালে ৩ হাজার অসহায় পরিবারের মাঝে স্বপন মিয়াজীর খাদ্য সামগ্রী প্রদান  পুলিশকে ফাঁকি দিলেও করোনাকে দেয়ার সুযোগ নেই পত্রিকার হকারদের মাঝে ফেনী রিপোর্টার্স ইউনিটির খাদ্য সহায়তা প্রদান ফরহাদ নগরে নিজাম হাজারীর পক্ষে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে শুসেন শীলের ঈদ উপহার ‘বেঁচে থাকলে পরিবারের সঙ্গে অনেক ঈদ করতে পারবেন’ ঢাকার বাইরে টেস্ট কম শনাক্ত বেশি

‘বেঁচে থাকলে পরিবারের সঙ্গে অনেক ঈদ করতে পারবেন’

ঈদে ঘরমুখী মানুষদের এবার বাড়ি না যাওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ। ফেরি ঘাটে আটকা পড়াদের স্ব অবস্থানে ফিরে আসতেও বলেছেন তিনি। আজ মঙ্গলবার পবিত্র ঈদুল ফিতর ও করোনা মহামারী নিয়ে আইন-শৃংখলা বিষয়ে রাজারবাগ পুলিশ অডিটোরিয়ামে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আইজিপি এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, আপনারা যারা পরিবারের সঙ্গে ঈদ করার জন্য ফেরিঘাটে আটকা পড়েছেন তারা স্ব স্ব অবস্থানে ফিরে আসুন। এই অবস্থায় বাড়ি গেলে আপনারা করোনা দূত এমনি যম দূত হয়ে আপনজনের কাছে যাবেন। বাড়ি গিয়ে আপনাদের আপনজনকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলবেন। বেঁচে থাকলে পরিবারের সঙ্গে অনেক ঈদ করতে পারবেন। আর মরে গেলে এই ঈদই শেষ ঈদ । ফেরিঘাটে আটকা পড়াদের অনুরোধ করে তিনি বলেন, দয়া করে যেখানে ছিলেন সেখানে ফিরে আসুন।

সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। দয়া করে কেউ ঝুঁকি নেবেন না। যে পরিবারের কাছে যাচ্ছেন ঈদ করার জন্য সেখানে করোনা সংক্রমণ ছাড়ানোর শঙ্কা তৈরি করবেন না। যারা আটকে আছেন তাদের ঢাকায় ফেরার জন্য পুলিশ প্রয়োজনে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।
বেনজীর আহমেদ বলেন, শপিংমলগুলো খোলা হয়েছে। আমরা মার্কেট সমিতির সঙ্গে কথা বলেছি, এসকল বিষয়ে সরকার নির্দেশ জারি করেছেন। যাতে করে মার্কেটগুলোতে শপিং নিরাপদ হয়। আমরা শপিং এর বেলায় একটি কথা উচ্চারণ করছি, ‘স্বাস্থ্যবিধি ও সুরক্ষা বিধি যেগুলো আছে সেগুলো অবশ্যই মেনে চলতে হবে। মার্কেট সমিতি, বিক্রয়কর্মী ও ক্রেতারা মানবেন। সবাই এসব স্বাস্থ্যবিধি মেনেই শপিং করবেন। ৫/১০ দোকান দেখে এক দোকানে শপিং করার যে কালচার আছে সেটাকে এবছর পরিহার করাই ভালো হবে। বলেন, করোনায় মৃত্যু কিন্তু সত্যচোখা, এটা কোন জিজুর ভয় নয়। এটা রিয়েল ফ্যাক্ট। তাই যে স্বাস্থ্যবিধির কথা বলা হয়েছে। সেটা সবাই মেনে চলবেন। আমরা যদি এগুলো মেনে চলি তবে আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস বৈশ্বিক এই দুর্যোগ থেকে জাতিকে দেশকে জনগণকে তুলনামূলকভাবে রক্ষা করতে পারব।
আইজিপি বলেন, ঈদেন দিন কেউ ফুর্তি করার জন্য ঘর থেকে বের হবেন না। এমনকি কোনো দৃশ্য দেখার জন্যও বের হবেন না। ঘরে থাকুন। একটু সতর্কভাবে চলুন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। ঈদের জামাত অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে সরকারের নির্দেশনা মেনে চলুন।
জনগণকে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে বাধ্য করা বা সান্ধ্য আইন জারি করা হবে কিনা জানতে চাইলে আইজিপি বলেন, সরকারকে সার্বিক বিষয়ে মূল্যায়ন করে সিদ্ধান্ত নিতে হয়। অনেক দেশ বিধি অনুসরণে জনগণের উপর জোর খাটাচ্ছে। কিন্তু আমি বলব আমরা গত দুই মাস যেভাবে জনগণের সাথে কাজ করেছি, জনগণকে নিয়ে কাজ করেছি সেভাবেই করবো। প্রধানমন্ত্রী প্রতি ঘণ্টায় ঘণ্টায় সবকিছুর খবর রাখছেন।
পুলিশ কেন কঠোর হচ্ছে না সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের জবাবে আইজিপি বলেন, সরকার দেশের মানুষের জন্য যেটা ভালো সেটাই করছে। দেশে অনেক প্রান্তিক ও খেটে খাওয়া মানুষ রয়েছে। সরকারকে সার্বিক দিক বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নিতে হয়। অনেক দেশ মানুষকে ঘরে রাখতে শক্তি প্রয়োগ করলেও আমরা কোনো শক্তি প্রয়োগ করিন

ট্যাগ :

আরও পড়ুন


Logo