ফেনী
শুক্রবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, দুপুর ২:৩৪
, ১৭ই জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

কাজ শেষ হচ্ছে চলতি মাসেই

ফেনীতে শ্বাসকষ্ট রোগীদের দুর্ভোগ লাঘব করবে লিকুইড অক্সিজেন ট্যাংক

২৫০ শয্যা বিশিষ্ট ফেনী জেনারেল হাসপাতালে ১২ হাজার লিটারের লিকুইড অক্সিজেন ট্যাংক স্থাপন করা হচ্ছে।এখন থেকে অক্সিজেনের জন্য এখানকার মানুষকে ঢাকা কিংবা চট্টগ্রাম ছুটতে হবে না।ফলে শ্বাসকষ্ট জনিত রোগীদের দুর্ভোগ যেমন লাঘব হবে, তেমনি করোনা আক্রান্তদের মৃত্যু ঝুঁকিও কমবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, হাসপাতালটিতে নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।প্রতিটি ওয়ার্ডেই কপার পাইপ, ভ্যাপারাইজারসহ প্রয়োজনীয় স্থাপনের কাজ চলছে। প্রায় সবকটি শয্যার পাশে বসেছে অক্সিজেন পোর্টও।
সূত্র জানায়, করোনার প্রথমদিকে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে আইসিইউ সুবিধাসহ প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সামগ্রী ছিল না। পরবর্তীতে ফেনী ইউনিভার্সিটি ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান নাসিম চৌধুরীর ব্যক্তিগত উদ্যোগে সালেহউদ্দিন এবং হোসনে আরা চৌধুরী ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় হাসপাতালটিতে হাই ফ্লো অক্সিজেন সেবা নিশ্চিত করতে ১০টি বড় আকারের ম্যানিফোল্ড অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ৪৫টি অক্সিমিটার প্রদান করা হয়। এরপর যুক্ত হয় দুই শয্যার আইসিইউ সুবিধা।
সূত্র আরও জানায়, এ লিকুইড অক্সিজেন ট্যাংক স্থাপনের ফলে হাসপাতালের রোগীদের অক্সিজেন সংকট দূর হবে। ১২ হাজার লিটারের এই ট্যাংকটি স্থাপনের কাজ প্রায় ৮০ থেকে ৯০শতাংশ শেষ হয়েছে। সম্প্রতি করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকলে সিলিন্ডারের অক্সিজেনের মাধ্যমে পরিস্থিতি সামাল দেয়া কষ্টকর হয়ে পড়ে। এই অবস্থায় গত এপ্রিল মাস থেকে ইউনিসেফ এর অর্থায়নে লিকুইড অক্সিজেনের এ ট্যাংকটির স্থাপন কাজ শÍরু হয়।
হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ইকবাল হোসেন ভূঞা জানান, করোনা আক্রান্তরোগীদের জন্য ৪০-৬০ লিটার পর্যন্ত অক্সিজেন লাগে। সঠিক সময়ে এ অক্সিজেন দেওয়া হলে অনেক রোগীর জীবন রক্ষা পাবে। এ ট্যাংক স্থাপনের ফলে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে অক্সিজেন সংকট দূর হবে। পর্যায়ক্রমে ১০শয্যার আইসিইউও চালু করা যাবে।
হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবুল খায়ের মিয়াজী জানান, চলতি মাসের মধ্যেই এ অক্সিজেন ট্যাংকের কাজ শেষ হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। এরপরই অক্সিজেন সরবরাহ শÍরু হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে শÍরুর ৬ মাস পর্যন্ত ইউনিসেফ নিজস্ব লোক দিয়ে কাজ করবে। সেই সময়ে আমরা দক্ষ লোক তৈরি করবো। এ ট্যাংক শিগগিরই শেষ হওয়ার সম্ভাবনা নেই। লিকুইড ট্যাংক স্থাপন করায় অনেক সহজেই আমরা অক্সিজেন সরবরাহ করতে পারব।

ট্যাগ :

আরও পড়ুন


Logo