ফেনী
শুক্রবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, দুপুর ২:৫৪
, ১৭ই জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

রামপুরে মাদকের রমরমা ব্যবসা,নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুই পক্ষের মারামারি

ফেনী পৌর এলাকার রামপুরের বিভিন্ন স্থানে মাদকের রমরমা ব্যবসা চলছে।নিয়ন্ত্রণ নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে ওজি উল্লাহ সওদাগর বাড়ি ও কলোনি সংলগ্ন স্থানে দুই পক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনাও ঘটেছে।এ সময় বেশ কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। এতে করে এলাকার জনসাধারণের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, রামপুরে সরকার দলীয় কিছু নেতা ও প্রশাসনকে ম্যানেজ করে মাদক কেনাবেচা চলছেই।এতে করে মাদক ব্যবসা কিছুতেই বন্ধ হচ্ছে না। রামপুর এলাকায় অনেক মাদক ব্যবসায়ী রয়েছে।দেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট অনুযায়ী ওই এলাকায় মাদক ব্যবসায়ীরা ৩/৪ ভাগে বিভক্ত হয়। তবে ওজি উল্লাহ সওদাগর বাড়ি ও ৩৬ কলোনি সংলগ্ন স্থান থেকে সব ধরনের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ করা হয় বলে স্থানীয়রা জানান। ওই এলাকা থেকে প্রতিদিন ইয়াবা, হেরোইন, ফেনসিডিল, চোলাইমদসহ বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য যানবাহনে দেশের বিভিন্ন জেলাতে সরবরাহ হচ্ছে।পাঁচজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীর কাছে প্রতিদিন শতশত মাদক সেবনকারী ভিড় জমাচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক এলাকাবাসী জানান, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অফিসের কোনো নতুন কর্মকর্তা আসার পর প্রথম কিছুদিন হাতেগোনা দু-চারজন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করেন। পরে রহস্যজনক কারনে অভিযান ঢিলেঢালাভাবে চলতে থাকে।
একাধিক মাদক ব্যবসায়ী বলেন, মাসোহারা ছাড়া মাদক ব্যবসা একদিনের জন্য করা সম্ভব না।

এর আগে কাউন্সিলর মানিকের বাসার সামনে মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ফেনী মডেল থানায় মামলাও হয়েছিল।কিন্তু প্রকৃত মাদক ব্যবসায়ীরা ধরাছোঁয়ার বাহিরে থেকে যায়।

ফেনী পৌরসভার ১৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ মানিক এ ব্যপারে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এ ব্যাপারে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ফেনীর সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ আবদুল হামিদ বলেন,এ বিষয়ে আমাদের কাছে কেউ অভিযোগ করেনি।আমরা খোঁজখবর নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

ট্যাগ :

আরও পড়ুন


Logo