ফেনী
শুক্রবার, ১লা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রাত ১২:৩৬
, ১৯শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি
শিরোনাম:
মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য বিক্রী করায় মস্কো বেকারসসহ ৪ প্রতিষ্ঠানের জরিমানা দাগনভূঞা প্রেস ক্লাবের নির্বাচনে সভাপতি সুমন, সম্পাদক রনি ফেনীতে শীতকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ফেনীর প্রবীণ সাংবাদিক শাহজালাল রতনের দাফন দেড় বছরের সাজা এড়াতে ৭ বছর পালিয়ে থেকেও রক্ষা হলো না দাগনভূঞা লন্ডনী নাছের প্লাজা পরিদর্শনে মাসুদ  চৌধুরী এমপি  ফাজিলপুরে ব্যবসায়ীর স্বর্ণ চুরির ১০ দিনে রহস্য উদঘাটন, গ্রেফতার ৬ ফেনী আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বিএনপি-জামাত সমর্থিত প্যানেল’র সংখ্যাগরিষ্ঠ জয় জিয়াউদ্দিন আহমেদ চৌধুরীর মৃত্যুতে খেলাঘর ফেনী জেলা কমিটির শ্রদ্ধাঞ্জলি ফের বাংলাদেশি ছবিতে ঋতুপর্ণা

সুফল মিলেছে সরকারি নিষেধাজ্ঞার

ফেনী নদীতে ধরা পড়ছে বড় বড় ইলিশ

ফেনীর সোনাগাজী উপজেলায় বড় ফেনী নদীতে জেলেদের জালে হঠাৎ ধরা পড়ছে ২ থেকে ৩ কেজি ওজনের বড় বড় ইলিশ। গত কয়েকদিনে ১২৬ টি ইলিশ ধরা পড়েছে।এতে করে স্থানীয় জেলেদের মাঝে উৎসা উদ্দিপনা দেখা দেয়। তবে অতীতের রেকর্ড অতিক্রম করে বড় ফেনী নদীতে বড় আকারের এত বিপুল পরিমাণ ইলিশ ধরা পড়ায় জাটকা সংরক্ষণে সরকারি নিষেধাজ্ঞার সুফল মিলেছে বলে জানিয়েছেন মৎস্য কর্মকর্তা ও স্থানীয়রা।

জানা গেছে, ৫ আগস্ট গত বৃহস্পতিবার বিকালে বড় ফেনী নদীতে সোনাগাজী উপজেলার আদর্শগ্রাম এলাকার জেলেদের জালে ৩ কেজি ও ২ কেজির ওজনের ৩৫টি ইলিশ  ধরা পড়ে।এ ৩৫টি ইলিশের মধ্যে ৫টির ওজন প্রায় ৩ কেজি করে। অপর ৩০টির ওজন ২ কেজির উপরে। সব মিলিয়ে জেলেরা ৩ মণ ১২ কেজি ওজনের ইলিশ শিকার করেন।
এর আগে ৩ আগস্ট গত মঙ্গলবার একই জেলেদের জালে ৩ কেজি ও আড়াই কেজি ওজনের ২১টি ইলিশ মাছ ধরা পড়ে।
ওই ২১টি ইলিশের মধ্যে ৮টির ওজন প্রায় ৩ কেজি করে। অপর ১৩টিরও ওজন আড়াই কেজি করে। সব মিলিয়ে জেলেদের জালে প্রায় ১ মণ ৩০ কেজি ইলিশ ধরা পড়েছে।
২৭ জুলাই বুধবার সকালে উপজেলার আর্দশগ্রাম এলাকার জেলে নয়ন মিয়াসহ ১০ জন জেলে বড় ফেনী নদীতে ইলিশ মাছ ধরতে নদীর শেষ প্রান্তে বঙ্গোপসাগরের মোহনায় জাল ফেললে ২ কেজি ওজনের ৫০টি ইলিশ ধরা পড়ে। ওজন করে দেখা গেছে, ওই ৫০টি ইলিশের মধ্যে ৩৫টি ২ কেজি ১৫০ গ্রাম, অপর ১৫টিও প্রায় দুই কেজি ওজনের। একই জালে ধরা পড়েছে আরও ছোট-বড় প্রায় ২৫ কেজি ইলিশ। সব মিলিয়ে জেলেদের জালে প্রায় ৩ মণ ৫ কেজি ইলিশ ধরা পড়েছে।
এদিকে ২৬ জুলাই আদর্শগ্রাম এলাকার জেলে আবদুল খালেকসহ সাত-আটজন জেলে সোমবার গভীর রাতে ইলিশ ধরতে নদীতে জাল ফেললে মংগলবার ভোরে ২ কেজি ওজনের ২০টি ইলিশ ধরা পড়েছে। ২০টি ইলিশের ১৫টিরই ওজন ২ কেজির বেশি। বাকি পাঁচটিও দুই কেজির কাছাকাছি।
সোনাগাজী উপজেলা মৎস্য আড়ত সূত্র জানায়, প্রায় দু’মাসের নিষেধাজ্ঞা শেষে জেলেরা নদীতে মাছ ধরতে নেমে প্রত্যাশারও বেশি মাছ ধরতে পারছেন। বড় বড় ইলিশ ছাড়াও সম্প্রতি বড় ফেনী নদী ও ছোট ফেনী নদীতে ৫ থেকে ২০ কেজি ওজনের কোরাল, বোয়াল, কাতল, পাঙাশ, বাগাড়সহ বিভিন্ন ধরনের মাছ পাওয়া যাচ্ছে।
স্থানীয় মৎস্য ব্যবসায়ী নেয়ামত উল্যাহ  জানান, জেলেদের জালে ধরা পড়া ৫০ টি ইলিশ নদীর তীরে আড়ত থেকে ৩ মণ ৫ কেজি ইলিশ মাছ ১ লাখ ৯০ হাজার ৫০০ টাকায় কিনে নেন। পরে বাজারে এনে ৫০টি বড় মাছ ১ লাখ ৪৮ হাজার ৪০০ টাকাসহ সবগুলো মাছ ২ লাখ ১০ হাজার টাকায় বিক্রি করেন। এসব মাছ দেখতে উৎসুক জনতার ভীড় দেখা যায়।দাম বেশি মনে  হলেও অনেকেই ক্রয় করে পরিবারের জন্য নিয়ে যায়।
স্থানীয় জেলেরা জানান, জলদস্যুদের ভয়ে বড় ফেনী নদীর শেষ প্রান্তে বঙ্গোপসাগরের মোহনার দিকে যেতে ভয় পেতেন তারা।প্রশাসনের কঠোরতায় এখন জলদস্যু নেই বললেই চলে।ফলে জেলেরা এখন সাগরের মোহনাতে যেতে পারছেন বিদায় দুই থেকে তিন বছর ধরে ফেনী নদীতে ভালোই ইলিশ ধরা পড়ছে।
জেলে খালেক মিয়া জানান, প্রতিবছরের অক্টোবর মাসে  ইলিশের প্রজনন মৌসুমে ২২ দিনের সরকারি নিষেধাজ্ঞা থাকে। পেটের দায়ে এ নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জেলেরা মাছ ধরলেও কত কয়েক বছরের প্রশাসনের সহযোগিতায় জাটকা ইলিশ সংরক্ষণে ভুমিকা রেখেছেন। ফলে এ নিষেধাজ্ঞার সুফল দিচ্ছে বড় বড় ইলিশ।
উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা তূর্য সাহা বলেন, মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানের আগে মাঝেমধ্যে অন্যান্য প্রজাতির বেশ বড় মাছ পাওয়া গেছে। এই মৌসুমে নদীতে একাধিকবার তিন কেজি ও দুই কেজি ওজনের বড় ইলিশ মাছ ধরা পড়েছে। তবে সামনে আরও বড় বড় মাছ ধরা পড়বে বলেও তিনি আশা করছেন।
জেলা মৎস কর্মকর্তা মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেন জানান,
প্রজনন মৌসুমসহ সরকারি বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞা মেনে চলায় স্থানীয় জেলেরা উপকৃত হচ্ছেন। এ কারণে নদীতে ইলিশসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছের বংশবিস্তার বেড়েছে। যার ফলে নদীতে টানা ও বসানো জালে বড় বড় ইলিশ মাছ প্রচুর ধরা পড়ছে।

ট্যাগ :

আরও পড়ুন


Logo