ফেনী
শনিবার, ২৮শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, দুপুর ১২:৪১
, ৫ই রজব, ১৪৪৪ হিজরি

পরশুরামে বাবাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ,ছেলেসহ গ্রেফতার-২

ফেনীর পরশুরামে আবদুল মমিন (৬৫) নামে বাবাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে ছেলের বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার চিথলিয়া ইউনিয়নের পূর্ব আলকা গ্রামে নিজ বাড়িতে মারধর করা হয়। পরে রাত সাড়ে ১২টার দিকে ফেনী  জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই ব্যক্তি মারা যান।এ ঘটনায় ছেলে মো. ফারুক ওরফে রাজিব (৩৫) ও তাঁর শ্যালক আবদুল মজিব ওরফে সুমনকে (৩২) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
জানা গেছে, উপজেলার চিথলিয়া ইউনিয়নের পূর্ব আলকা গ্রামের আবদুল মমিনের এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে।মমিন ও তাঁর স্ত্রী গ্রামের বাড়িতে থাকতেন।মমিনের ছেলে ফারুক তাঁর স্ত্রী–সন্তান নিয়ে উপজেলা সদরে বাসাভাড়া নিয়ে থাকতেন।বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে ফারুক ও তাঁর শ্যালক আবদুল মজিব গ্রামের বাড়িতে যান। এ সময় আবদুল মমিন ঘুমানোর প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। বাড়িতে আসার পর থেকেই ফারুক ও তাঁর বাবার মধ্যে বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। দুজনের মধ্যে বাগ্‌বিতণ্ডা চলার একপর্যায়ে ফারুক ক্ষিপ্ত হয়ে আবদুল মমিনের মাথায় লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি মারতে থাকেন। এতে আবদুল মমিন গুরুতর আহত হলে ফারুক তাঁর শ্যালককে নিয়ে পালিয়ে যান।পরে আবদুল মমিন ও তাঁর স্ত্রীর চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে আবদুল মমিনকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে পরশুরাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাঁকে দ্রুত ফেনী জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত সাড়ে ১২টায়  আবদুল মমিন মারা যান।
এ ঘটনায় মেয়ে পানু আক্তার বাদী হয়ে রাতেই থানায় হত্যা মামলা করেন।
পরশুরাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, নিহত ব্যক্তির পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অভিযুক্ত ফারুক তাঁর বাবাকে মারধরের ঘটনাটি ডাকাত দলের হামলা বলে চালিয়ে দিতে চেয়েছিলেন।তবে এ ঘটনায় রাতেই মামলা হলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ফারুক ও আবদুল মজিবকে গ্রেপ্তার করেছে।গ্রেপ্তার দুজনকে শুক্রবার সকালে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

ট্যাগ :

আরও পড়ুন


Logo