ফেনী
শনিবার, ২৮শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, দুপুর ১:৫৯
, ৫ই রজব, ১৪৪৪ হিজরি

বিএসএফ ধরে নেওয়ার ৩দিন পর লাশ মিললো ফেনীর এক কৃষকের 

ফেনীর পরশুরাম সীমান্তে  বিএসএফ সদস্যরা মেজবাহ উদ্দিন (৪৭) নামের এক কৃষককে ধরে নেওয়ার ৩দিন পর তার লাশ পাওয়া গেছে ।
বুধবার  উপজেলার বাঁশপদুয়া সীমান্ত এলাকায় ভারতের কাঁটা তারের ৬৪ নং পিলারের ৯-১০ নং পিলারের একশ গজ ভিতরে স্থানীয়রা মেজবাহ উদ্দিনের মরদেব জঙ্গলে পড়ে থাকতে দেখে বিজিবিকে খবর দেয়।
নিহত মেজবাহ পরশুরাম পৌরসভার উত্তর গুথুমা এলাকার  মফিজুল ইসলামের ছেলে।
সুত্রে জানা গেছে, গত রোববার বিকেলে উপজেলার বাঁশপদুয়া গ্রামের সীমান্তবর্তী এলাকায় বাংলাদেশের অংশে ধান কাটছিলেন মেজবাহ উদ্দিন। এসময় ভারতীয় বিএসএফ ওই সীমান্ত এলাকায় চোরাকারবারিদের ধাওয়া করতে গিয়ে বাংলাদেশ অংশে প্রবেশ করে এবং মেজবাহ উদ্দিনকে পেয়ে আটক করে নিয়ে যায়।
মেজবাহ উদ্দিনের স্ত্রী মরিয়ম ও তার পরিবার বিষয়টি ওই দিন স্থানীয় বিজিবি ও পুলিশ প্রশাসনকে অবহিত করে। পরদিন সোমবার পর পর তিনবার বিজিবি ও ভারতীয় বিএসএফের সাথে দ্বিপাক্ষিক পতাকা বৈঠক করলেও মেজবাহ উদ্দিনকে ধরে নেওয়ার বিষয়টি  অস্বীকার করে
বিএসএফ।
স্থানীয় কাউন্সিলর নিজাম উদ্দিন সুমন জানান, রোববার বিকেলে মেজবাহকে ভারতীয় বিএসএফ ধরে নিয়ে যায়। কিন্তু সীমান্ত এলাকায় দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে ভারতীয় বিএসএফ তাকে ফেরত না দিয়ে অস্বীকার করেন। বুধবার সকালে তার লাশ দেখতে পায় এবং মেজবাহ উদ্দিন বলে নিশ্চিত করেন।
ফেনীস্থ ৪ বিজিবি’র অধিনায়ক লেফটেনেন্ট কর্নেল আরিফুর রহমান জানান, ভারতের কাটাতারের একশ গজের ভিতরে এক তরুনের মরদেহ দেখতে পেয়ে স্থানীয় লোকজন বিজিবিকে খবর দেয়। তবে ওই লাশের পরিচয় এখনো জানা যায়নি। তিনি আরো জানান, স্থানীয়রা দাবি করছেন গত তিনদিন আগে বাংলাদেশী এক যুবককে ভারতীয় বিএসএফ ধরে নিয়ে হত্যা করে ওই জঙ্গলে ফেলে দিয়েছে। তবে ওই ব্যাক্তির পরিচয় এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
পরশুরাম মডেল থানার ওসি মো সাইফুল ইসলাম জানান, গত তিন দিন আগে ভারতীয় বিএসএফ একজনকে ধরে নিয়ে গেছে, বুধবার সকালে একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখে গ্রামবাসী পুলিশকে খবর দেয়। যেহেতু ভারতীয় সীমান্তবর্তী এলাকা তাই বিজিবি আইনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে লাশ উদ্বার করবে। বুধবার সন্ধা পযন্ত লাশ উদ্বার করা সম্ভব হয়নি বলে তিনি জানান।

ট্যাগ :

আরও পড়ুন


Logo