ফেনী
বৃহস্পতিবার, ২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রাত ১১:৩৪
, ১৮ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি
শিরোনাম:
মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য বিক্রী করায় মস্কো বেকারসসহ ৪ প্রতিষ্ঠানের জরিমানা দাগনভূঞা প্রেস ক্লাবের নির্বাচনে সভাপতি সুমন, সম্পাদক রনি ফেনীতে শীতকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ফেনীর প্রবীণ সাংবাদিক শাহজালাল রতনের দাফন দেড় বছরের সাজা এড়াতে ৭ বছর পালিয়ে থেকেও রক্ষা হলো না দাগনভূঞা লন্ডনী নাছের প্লাজা পরিদর্শনে মাসুদ  চৌধুরী এমপি  ফাজিলপুরে ব্যবসায়ীর স্বর্ণ চুরির ১০ দিনে রহস্য উদঘাটন, গ্রেফতার ৬ ফেনী আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বিএনপি-জামাত সমর্থিত প্যানেল’র সংখ্যাগরিষ্ঠ জয় জিয়াউদ্দিন আহমেদ চৌধুরীর মৃত্যুতে খেলাঘর ফেনী জেলা কমিটির শ্রদ্ধাঞ্জলি ফের বাংলাদেশি ছবিতে ঋতুপর্ণা

একে অপরকে দায়ী করে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

মোটবীতে আওয়ামী লীগের বিরোধ তুঙ্গে,এমপির তোরণ ভাংচুর

ফেনী সদর উপজেলার মোটবীতে আওয়ামী লীগের বিরোধ তুঙ্গে উঠেছে।রোববার নিজাম উদ্দিন হাজারী এমপির আগমনকে কেন্দ্র করে তোরণ নির্মান করা হলে ভাংচুর করা হয়।এটিকে কেন্দ্র করে মোটবীতে আওয়ামী লীগের বিরোধ আবার আলোচনায় আসে।তবে এ ঘটনায় একে অপরকে দায়ী করে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেন সরকার দলীয় নেতারা।

সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে, রোববার সকালে মোটবী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে। অনুষ্ঠানে এমপির আগমনকে কেন্দ্র করে সড়কের দুই পাশে তোরন নির্মান করে সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা।

বৃহস্পতিবার সকালে ইউনিয়নের উত্তর লক্ষিপুর গ্রামস্থ স্বপ্ন সেতু সংলগ্ন সড়কের দুই পাশে এমপিকে স্বাগত জানিয়ে জেলা যুবলীগের শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন এবং সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য জসিম উদ্দিনের পক্ষে তোরণ নির্মান করাকালে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় চেয়ারম্যান হারুন অর রশীদের অনুসারী মোটবী ইউনিয়ন যুবলীগের সহ-সভাপতি সজিব তাতে বাধা দেন।বিষয়টি যুবলীগ নেতা আনোয়ার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চেয়ারম্যান হারুন অর রশীদকে জানালে ওই সময় তোরণ নির্মানে আর বাধা দেয়নি।পরে ওইদিন রাতে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা এমপিকে স্বাগত জানিয়ে লাগানো যুবলীগ নেতা আনোয়ার ও আওয়ামী লীগ নেতা জসিমের তোরণ ভাংচুর করে। এ ঘটনার জন্য আওয়ামী লীগ নেতা  হারুনকে দায়ী করে ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তি দাবী করেন যুবলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান হারুন জানান, সড়কের কাজের জন্য স্কেভেটর নিয়ে যাওয়ার সময় তোরনের বাঁশে ধাক্কা লেগে পড়ে যায়।পরে বাঁশ গুলো ভেঙে আমাকে ফাঁসানোর জন্য প্রতিপক্ষরা আমার বিরুদ্ধে চক্রান্তে লিপ্ত।

স্থানীয় বাসিন্দা মোশাররফ হোসেন জানান,আগেরদিন এমপির তোরণ নির্মান করা হলেও শুক্রবার সকালে ওই স্থানে পাওয়া যায়নি। তবে কে বা কারা এমপির তোরণ ভাংচুর করেছে তা দেখেননি তিনি।

এ ব্যপারে ফেনী মডেল থানার ওসি নিজাম উদ্দিন জানান, এ ব্যপারে লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিবে পুলিশ।

ট্যাগ :

আরও পড়ুন


Logo